শনিবার, ২২ Jun ২০২৪, ০৩:৩৬ অপরাহ্ন

ভান্ডারিয়ায় এক সপ্তাহের ব্যবধানে সড়কে ঝড়ল ৩ প্রাণ; শিশু মহিলা সহ আহত-৯

ভান্ডারিয়ায় এক সপ্তাহের ব্যবধানে সড়কে ঝড়ল ৩ প্রাণ; শিশু মহিলা সহ আহত-৯

0 Shares

জে আই লাভলু :
পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ায় এক সপ্তাহের ব্যবধানে পৃথক তিনটি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ জন নিহত সহ ৯জন নারী-পুরুষ গুরুতর আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ রুটটিতে বিভিন্ন সময়ে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোর কারনেই প্রায়ই এমন দুর্ঘটনা ঘটছে বলে প্রশাসন ও স্থানীয় জনসাধারনের দাবি। এ উপজেলার প্রধান দুটি সড়কে প্রতিনিয়ত ছোট বড় দুর্ঘটনায় আহত হওয়ার ঘটনা নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।
হাবিব মীর নিহত হওয়ার পর সোমবার (১৫মার্চ) দুপুরে ২৪ ঘন্টা পার হতে না হতেই একই সড়কে পিক-আপের ধাক্কায় এখানে ঝড়ে এক যুবকের প্রাণ। ভান্ডারিয়া – মঠবাড়ীয়া আঞ্চলিক মহা সড়কের ভান্ডারিয়া উপজেলার ইকড়ি ইউনিয়নের ৪১নং বোর্ড সরকারি প্রাথমিক স্কুল সংলগ্ন সড়কে মাছ বহনকারী একটি পিক-আপ ভ্যান ভাড়ায় চালিত একটি মোটরসাইকেলকে পেছন দিক থেকে ধাক্কা দিলে সোমবার ঘটনা স্থলেই প্রাণ হারায় মোটরসাইকেল চালক আবুজাফর (৩২)। সে মঠবাড়ীয়া উপজেলার তুষখালী গ্রামের মোদাচ্ছের আলীর ছেলে।
স্থানীয়রা জানায়, আবুজাফর প্রতিদিনের ন্যায় দুধ নিয়ে মঠবাড়ীয়া থেকে ভান্ডারিয়া যাচ্ছিল। পথে এ দূর্ঘটনার শিকার হন তিনি।
ভান্ডারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো.মাসুমুর রহমান বিশ্বাস জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে এবং পিকা- আপ ভ্যানটি আটক করা হয়েছে।
এদিকে,এ ঘটনার আগের দিন রবিবার দুপুরে (১৪ মার্চ) জেলার ভান্ডারিয়ায় সড়ক দূর্ঘটনায় হাবিব মীর নামের এক দিন মজুর নিহত হন। এঘটনায় গুরুত্বর আহত হন শিশু মহিলাসহ আরো নয় জন। রবিবার দুপুর ১২ টার দিকে উপজেলার বঙ্গবন্ধু সড়কের নদমুলা-চরখালী বাইবাস সংযোগস্থলে ইট টানা ট্রলির সাথে চরখালীগামী ইজি বাইকের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। এতে জেলার ইন্দুরকানী উপজেলার ইন্দুরকানী গ্রামের ওহাব মীরের ছেলে ঘটনাস্থলেই মারা যান। ছারছিনা মাহাফিল থেকে ইন্দুরকানীতে ফেরার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
এ ঘটনায় গুরুত্বর আহত হন ইজিবাইক চালক রাজাপুরের কানুদাসকাঠী গ্রামের আঃ জব্বার হাওলাদারের ছেলে মানিক (৩৫), খুলনার পাওয়ার হাউজ এলাকার আবুল কাসেমের স্ত্রী মমতাজ বেগম (৫৬), ইন্দুরকানীর মোশারফ হাওলাদার এর ছেলে আঃ জলিল (৪০), ভান্ডারিয়ার নদমুলা গ্রামের একই পরিবারের কামরুল ইসলাম (৪৫), তার স্ত্রী তাসিলামা বেগম (৩৫), তার মেয়ে ফারজানা ইসলাম মীম (১৪), বোতলার পশারিবুনিনয়ার মিল্টন নন্দীর স্ত্রী মিনতি রানী (৫০), তার মেয়ে কথা (৭) ও কৃষ্ণা (১৩)।
অপারদিকে ভান্ডারিয়ায় -কাঠালিয়া সড়কে গত ৮ মার্চ সোমবার সকালে ট্রাকের ধাক্কায় গাছ উপড়ে পড়ে ঘটনা স্থলেই প্রাণ হারান কলেজ ছাত্র মুবিন রাজ হাওলাদার (২৭)। সে উপজেলার ইকড়ি গ্রামের শিক্ষক মুজিবর হাওলাদারের ছেলে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মুবিন রাজ ঐদিন সকালে সাব-রেজিষ্টি অফিস সংলগ্ন ভান্ডারিয়া-কাঠালিয়া সড়কে দাড়িয়ে তার বন্ধু নাজমুলের সঙ্গে কথা বলছিল। এসময় কাঠালিয়া থেকে ভান্ডারিয়াগামী একটি পণ্যবাহী ট্রাক (অজ্ঞাত) সড়কের ওপর ঝুকে পড়া একটি মৃত শিশু গাছে ধাক্কা দিলে বন বিভাগের এ গাছটি উপড়ে পড়ে। গাছের নিচে চাপা পড়ে ঘটনা স্থলেই প্রাণ হারায় মুবিন রাজ।
ভান্ডারিয়া বাসস্ট্যান্ড এলাকার ব্যবসায়ী হানিফ মিয়া জানান, এই ভান্ডারিয়া-মঠবাড়িয়া এবং ভান্ডারিয়া-কাঠালিয়া সড়কে অনেকেই দ্রæত গতিতে গাড়ি চালান। যার কারনে এখানে দুর্ঘটনাও ঘটছে অহরহ।
ভান্ডারিয়ার থানার ওসি মোঃ মাসুমুর রহমান বিশ্বাস আরো জানান, সড়কে নিয়ন্ত্রণ না রেখে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোর কারনেই প্রায়ই এমন দুর্ঘটনা ঘটছে এই রুটতিতে।





প্রয়োজনে : ০১৭১১-১৩৪৩৫৫
Design By MrHostBD
Copy link
Powered by Social Snap