বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৩৪ অপরাহ্ন

ভান্ডারিয়ায় দোকানে সাবান কিনতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার মাদ্রাসাছাত্রী

ভান্ডারিয়ায় দোকানে সাবান কিনতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার মাদ্রাসাছাত্রী

0 Shares

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া মাদ্রাসা ছাত্রীকে (১২) ধর্ষণের অভিযোগে উঠেছে চার যুবকের বিরুদ্ধে। উপজেলার গৌরীপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের চড়াইল গ্রামে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। বিগত পাঁচ বছর পূর্বে তার পিতামাতার বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। এরপর থেকে ছাত্রীটি নানা বাড়ি থেকে স্থানীয় একটি মাদরাসায় পড়াশুনা করতো।
ছাত্রীর নানা তানজের আলী জানান, শুক্রবার রাত ৭ টার দিকে নাতনি বাড়ির পার্শ্ববর্তী আব্দুল হালিমের দোকানে সাবান কিনতে যায়। এরপর তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। ঘন্টা দুয়েক খোজাঁখুজি শেষে প্রতিবেশীর বাড়ি থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করে স্থানীয়রা। তিনি আরো বলেন, আমার নাতনী আত্মরক্ষার্থে প্রতিবেশী মিজানের ঘরে আশ্রয় নেয়।

শিশুটির বড় খালা বিলকিস বেগম জানান, সাবান কিনতে গেলে তাকে একই গ্রামের সবুজ মোল্লার ছেলে সাকিব জোরপূর্বক পাশর্বতী হাওলাদার বাড়ির সুপারি বাগানে নিয়ে যায়। এসময় সাকিবসহ দলবেধেঁ ধর্ষণ করে লিটন হাওলাদারের ছেলে সিরাজ, মোঃ আলোর ছেলে সাহেন শাহ এবং মোঃ মিজানের ছেলে সজিব।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক যুবক জানান, এ ঘটনা জানাজানি হলে ধামাচাপা দিতে স্থানীয় টেম্পু চালক জাহাঙ্গীর মাঝি ও রাছেল মাঝির নেতৃত্বে দুই হাজার টাকায় মিমাংসা করা হয়। শনিবার সকালে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ভুক্তিভোগী ছাত্রীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য এবিএম নাজমুল হাসান বাশার জানান, শনিবার সকালে ঘটনাটি জেনেছি। বাড়ি না থাকায় বিস্তারিত জানার সুযোগ হয়নি।
অভিযুক্তদের বক্তব্য জানতে বাড়িতে গিয়ে ঘরে তালাবদ্ধ পাওয়া গেছে। প্রতিবেশীরা জানান ঘটনার পর তারা পালাতক রয়েছে।

ভান্ডারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুমুর রহমান বিশ্বাস বলেন, শনিবার সকালে খবর পেয়ে ভান্ডারিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় তিনজনের নাম উল্লেখ সহ অজ্ঞাত একজনের বিরুদ্ধে ভুক্তভোগীর মা বাদী হয়ে মামলা করেন। অভিযুক্তদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।





প্রয়োজনে : ০১৭১১-১৩৪৩৫৫
বাংলা English
Copy link
Powered by Social Snap