মঙ্গলবার, ২৫ Jun ২০২৪, ০৩:২৫ অপরাহ্ন

ইন্দুরকানীর ঘোষেরহাটে সেতু ভেঙে পড়ায় ভোগান্তিতে জনসাধারন

ইন্দুরকানীর ঘোষেরহাটে সেতু ভেঙে পড়ায় ভোগান্তিতে জনসাধারন

0 Shares

ইন্দুরকানী বার্তা:
পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে রাতের আঁধারে সেতু ভেঙে খালে পড়ে যাওয়ায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন দুই পাড়ের কয়েক হাজার মানুষ। গত বুধবার রাতে হঠাৎ বিকট শব্দে উপজেলার ঘোষের হাট বাজারের সেতুটি ভেঙ্গে পড়ে। এক মাত্র সেতুটি ভেঙ্গে যাওয়ায় স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রী ও জন সাধারনকে পড়তে হচ্ছে চরম অসুবিধায়। সেতুটি হঠাৎ ভেঙে পড়ায় সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

জানা যায়, উপজেলার ঘোষেরহাট বাজার সংলগ্ন খালের উপরের সেতুটি বুধবার রাতে দুমড়ে-মুচড়ে খালে পড়ে যায়। এতে ইন্দুরকানী ও মোরেলগঞ্জ উপজেলার হাজার হাজার মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়েছে। এই সেতুটি দিয়ে প্রতিদিন দুই উপজেলার স্কুল, কলেজ,মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রীসহ হাজার হাজার মানুষ চলাচল করে এবং বিভিন্ন মালামাল পরিবহন করে দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যায়। সেতুটি পার হয়ে এ উপজেলার বাসিন্দারা পার্শ্ববর্তী মোরেলগঞ্জ,বাগেরহাট যাতায়াত করে এবং মালামাল পরিবহন করে থাকে।

অপরদিকে মোরেলগঞ্জ উপজেলার হাজার হাজার মানুষ ইন্দুরকানী, পিরোজপুর জেলা শহরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করে ও মালামাল পরিবহন করে থাকে। সেতুটি ভেঙ্গে পড়ায় বর্তমানে কোন ধরনের যানবাহন চলাচল করতে পারছেনা। তবে এজন্য বেশি অসুবিধায় পড়েছে স্কুল গামী শিশু শিক্ষার্থীরা। এলাকাবাসী জনসাধারণের চলাচলের জন্য আপাতত সুপারি গাছ দিয়ে সাকো তৈরির ব্যবস্থা করছে বলে জানা গেছে।
তবে স্থানীয়রা জানায় সেতুটি দীর্ঘদিন ধরে জরাজীর্ণ অবস্থায় ছিল।

ঘোষেরহাট বাজারের ব্যবসায়ী ও যুবলীগ নেতা ইকরামুল শিকদার জানান,সেতুটি খুবই জনগুরুত্বপূর্ণ। সেতুটি ভেঙে যাওয়ায় দুই উপজেলার হাজার হাজার মানুষ ভোগান্তিতে পড়েছেন। তাই জনস্বার্থে সেতুটি দ্রুত নির্মাণ করা প্রয়োজন।

ইন্দুরকানী সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো.মাসুদ করিম ইমন জানান,জনগুরুত্বপূর্ণ সেতুটি ভেঙে যাওয়ায় দুই উপজেলার মানুষ চলাচলসহ মালামাল পরিবহন করতে অসুবিধার মধ্যে পড়েছে। সেতুটি দ্রুত নির্মাণের জন্য আমি কর্তৃপক্ষের কাছে সুপারিশ করবো।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী লায়লা মিথুন বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে যত দ্রুত সম্ভব মেরামতের ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিকী বলেন,আমি স্থানীয়দের মাধ্যমে সেতুটি ভেঙে পড়ার খবর পাওয়ার পর উপজেলা প্রকৌশলী ও সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানকে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলেছি।





প্রয়োজনে : ০১৭১১-১৩৪৩৫৫
Design By MrHostBD
Copy link
Powered by Social Snap