বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:৩১ অপরাহ্ন

জীবন বাঁচাতে ছাত্রলীগের ‘জয় বাংলা অক্সিজেন’

জীবন বাঁচাতে ছাত্রলীগের ‘জয় বাংলা অক্সিজেন’

0 Shares

ইন্দুরকানী বার্তা ডেস্ক :
গত বছরের ২৫ জুন ‘জয় বাংলা অক্সিজেন সেবা’ নিয়ে আসেন ছাত্রলীগের তিন নেতা। তখন থেকে এভাবেই রাতদিন করোনায় আক্রান্ত রোগীদের অক্সিজেন সেবা দিয়ে আসছেন তারা। ফোন করলেই বাসায় পৌঁছে দেয়া হয় সিলিন্ডার। বিনিময়ে কোনো টাকা নেয়া হয় না। ঢাকা ছাড়াও চট্টগ্রাম, সিলেট, রাজশাহী, ময়মনসিংহে এই সেবা চলছে৷

বীর মুক্তিযোদ্ধা হুমায়ূন কবীরের প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট। অক্সিজেন লাগবে। করোনার এই সময়ে চাইলেই পাওয়া কঠিন।

তবে মুক্তিযোদ্ধার ছেলে শুনতে পারেন এক বিশেষ উদ্যোগ ‘জয় বাংলা অক্সিজেন সেবার’ কথা। তিনি ফোন দিলেন সেখানে। আর ঘরেই হাজির হয়ে গেল সিলিন্ডার।

ঢাকার এলিফ্যান্ট রোডের বাসায় অক্সিজেন আসার পর অবাক হওয়ার পালা এই মুক্তিযোদ্ধার।

সিলিন্ডার নিয়ে যাওয়া স্বেচ্ছাসেবক তানভীর আলম চৌধুরীকে সামনে রেখে ছেলের কাছে এই মুক্তিযোদ্ধা প্রশ্ন রাখেন দাম হিসেবে কত টাকা দিতে হবে।

তবে তানভীর বলেন, ‘আংকেল, ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে এটি সম্পূর্ণ বিনামূল্যে দেয়া হচ্ছে।’

মুক্তিযোদ্ধা হুমায়ুন কবীর তাকে বলেন, ‘বাবা, পাকিস্তান আমলে আমিও ছাত্রলীগ করেছি। শেষ বয়সে এসে আমার প্রাণের সংগঠনের কাছ থেকে এমন কার্যক্রম আর উপকার পেয়ে খুব ভালো লাগছে।’

করোনাকালে অক্সিজেন লাগতে পারে যখন তখন। জয় বাংলা অক্সিজেন সেবার স্বেচ্ছাসেবকদের তাই আয়েশের জায়গা নেই।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী রেজিস্ট্রার শারমীন জাহান গত বুধবার রাতে নিজের ফেসবুকে লিখেন, ‘জরুরি একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রয়োজন। কোনো সহৃদয় ব্যক্তির সহযোগিতা চাচ্ছি।’

রাত দুইটায় তার বাসাতেও পৌঁছে দেয়া হয় বিনামূল্যের অক্সিজেন সিলিন্ডার।

জীবন বাঁচাতে ছাত্রলীগের ‘জয় বাংলা অক্সিজেন’
গত বছরের ২৫ জুন এই সেবা কার্যক্রম শুরু করেন ছাত্রলীগের তিন নেতা। তখন থেকে এভাবেই রাতদিন করোনায় আক্রান্ত রোগীদের অক্সিজেন সেবা দিয়ে আসছেন তারা। বর্তমানে ঢাকা ছাড়াও চট্টগ্রাম, সিলেট, রাজশাহী, ময়মনসিংহে এই সেবা চলছে৷

গত বছরের জুন থেকে আজ শনিবার পর্যন্ত পাঁচ হাজার রোগীকে বিনামূল্যে এই অক্সিজেন সরবরাহ করেছেন ছাত্রলীগের নেতারা।

কেবল অক্সিজেনের জন্য কারও কাছে টাকা নেন না তা নয়, কেউ যদি সহায়তা করতে চায়, তাহলেও কারও কাছ থেকে নগদে কোনো অর্থ নেয়া হয় না। আগ্রহীদেরকে অক্সিজেন কিনে দিতে বলেন ছাত্রলীগ নেতারা।

তিন ছাত্রলীগ নেতা হলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী, উপ-বিজ্ঞানবিষয়ক সম্পাদক সবুর খান কলিন্স এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সবুজ।

তারা ‘অক্সিজেন ফেরিওয়ালা’ হিসেবেও পরিচিতি লাভ করেছেন।

কেন শুরু এই উদ্যোগ?

সাদ বিন কাদের তাদের এই সেবা কার্যক্রম শুরুর প্রেক্ষাপট জানান নিউজবাংলাকে।

তিনি বলেন, ‘গত বছর মার্চ মাসে করোনা শুরু হয়। জুন, জুলাইয়ে প্রকট আকার ধারণ করলে বাজার থেকে অক্সিজেন সিলিন্ডার উধাও হয়ে যায়। পত্র পত্রিকার মাধ্যমে আমরা জানতে পারি, এক শ্রেণির মানুষ অক্সিজেনের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে বিভিন্ন হাসপাতালে ২০ মিনিটে অক্সিজেন সেবার দাম ৬০ থেকে ৮০ হাজার টাকা করে নেয়া হচ্ছে। তখনই মূলত আমরা এই সেবা কার্যক্রম শুরু করার চিন্তা করি।’

জীবন বাঁচাতে ছাত্রলীগের ‘জয় বাংলা অক্সিজেন’
তিনি বলেন, ‘প্রথমদিন ১২টা অক্সিজেন সিলিন্ডার দিয়ে ঢাকাতেই আমাদের সেবা কার্যক্রম শুরু হয়। বর্তমানে আমাদের ৯০টি সিলিন্ডার আছে। সারা বাংলাদেশে ১৪০ জনের বেশি স্বেচ্ছাসেবক রয়েছে। এদের প্রত্যেককে আমরা প্রশিক্ষণ দিয়েছি কীভাবে অক্সিজেন চালাতে হয়।

এই সেবা কার্যক্রমে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছাড়াও বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থীও স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করে বলে জানান সাদ।

শুরুর ১২টা অক্সিজেন সিলিন্ডারের ছয়টা নিজেরাই টাকা দিয়ে কেনেন তিন ছাত্রলীগ নেতা। বাকি ছয়টা এক ‘বড় ভাই’ উপহার দেন।

শুরুর দিকে প্রত্যেকটি সিলিন্ডারের মূল্য ছিল ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা৷ পরে এগুলোর দাম কমে।

সাদ বলেন, ‘সংকট বাড়লে রিফিল সেন্টারগুলোও সংকট তৈরি করে৷ ফলে প্রতিটি সিলিন্ডার রিফিল করতে ৩০০ টাকা থেকে দুই হাজার টাকা পর্যন্তও আমাদের খরচ হয়েছে।’

যেভাবে জোগাড় হয় অর্থ

এই টাকাটা কীভাবে যোগাড় হয় -জানতে চাইলে ছাত্রলীগের এই নেতা বলেন, ‘আমরা কারও কাছ থেকে সরাসরি টাকা নেয়াকে নিরুৎসাহিত করি। তবে কেউ রিফিল কস্ট (খরচ) দিতে চাইলে আমরা তাদের রিফিল সেন্টারের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দেই। তারা সেখানেই মূল্যটা পরিশোধ করে।

‘মাঝে মাঝে রোগীরা সিলিন্ডারগুলো ফেরত পাঠানোর সময় রিফিল করে দেয়। এছাড়া আমাদের এ কাজে সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ এগিয়ে আসে। এসব আমরা প্রতিমাসে ফেইসবুক লাইভে হিসাব দেই। তারপরও কোনো সময় কোথাও আটকে গেলে ছাত্রলীগ থেকে আমাদের সর্বোচ্চ সাহায্য করা হয়।’

জীবন বাঁচাতে ছাত্রলীগের ‘জয় বাংলা অক্সিজেন’
সাদ বিন কাদের বলেন, ‘শুরুর দিকে আমাদের জন্য কাজটি সহজ ছিল না। আমরা যখন শুরু করি তখন মানুষের মাঝে বিরাজ করছিল করোনার মারাত্মক ভীতি। কোনো বাড়িতে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে গেলে আশপাশের মানুষের হাজারো প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হতো। এমনও হয়েছে অক্সিজেন নিয়ে যাওয়া হয়েছে, ছেলে সামনে আসেনি। তার বাবাকে আমরাই অক্সিজেন সেট করে দিয়ে এসেছি।’

বেশি ফোন রাতে, তাই ঘুম শুরু সকালে

অক্সিজেন সরবরাহ শুরুর পর থেকে ঘুমের রুটিন পাল্টে গেছে স্বেচ্ছাসেবকদের।

সাদ বলেন, ‘রাতের একটা নির্দিষ্ট সময়ে যখন অক্সিজেনের দোকানগুলো বন্ধ হয়ে যায় তখনই মূলত আমাদের কাছে বেশি ফোন আসে। আর সেজন্য আমরা অনেকে সকাল হলে তারপর ঘুমাতে যাই, আর বাকিরা তখন সজাগ থাকে৷ এভাবে প্রতিদিন ২৪ ঘণ্টা আমাদের এই সেবা চলছে।’

জীবন বাঁচাতে ছাত্রলীগের ‘জয় বাংলা অক্সিজেন’
গভীর রাতে অক্সিজেন সেবা পেয়ে ফেসবুকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ঢাকার বাসিন্দা তানভীর রহমান। তিনি লেখেন, ‘গতরাতে কিছুক্ষণের জন্য হঠাৎ করেই মনে হচ্ছিলো মৃত্যুকে আলিঙ্গন করছি। হঠাৎ প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। অক্সিজেন নেয়াটা জরুরি হয়ে পরে। ফোন দেই জয়বাংলা অক্সিজেন সার্ভিসের সাদ বিন কাদের ভাইকে।

‘কিন্তু কোনো সিলিন্ডার ফাঁকা ছিল না, অনেকক্ষণ চেষ্টার পর আমার বাসায় সিলিন্ডারটি পৌঁছে দেয়া হয়। অক্সিজেন নেয়ার পর আমি এখন স্বাভাবিক।’

কখনো অক্সিজেন সংকট হয়েছে কি না জানতে চাইলে সাদ বলেন, ‘শুরুর পর থেকে এ বছরের এপ্রিল মাসের আগ পর্যন্ত শুধু মাত্র এক রাতের জন্য আমাদের অক্সিজেন সংকটে পড়েছে। তবে পরের দিন আমরা সেটি রিকাভার করে ফেলি।

‘তবে এই এপ্রিল থেকে আমাদের প্রচুর সংকট৷ যেভাবে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে সে অনুপাতে আমরা পেরে উঠছি না। তবে খুব জরুরি হলে কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে আমরা অক্সিজেন ভাড়া নিয়ে রোগীকে সেবা দেই। আর আমরাই টাকাটা পরিশোধ করি।’

করোনারা দ্বিতীয় ঢেউয়ে বেড়েছে চাহিদা

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা যখন বেড়ে চলেছে, তখন অক্সিজেনের চাহিদাও তুঙ্গে।

সাদ বলেন, ‘শুক্রবার আমরা ১৭ জনকে সেবা দিয়েছি। আজ ভোর থেকে বিকাল পর্যন্ত ১১টা কল পেয়েছি। কিন্তু আমরা দিতে পারছি না। কারণ, আমাদের সব সিলিন্ডার বিভিন্ন রোগীদের কাছে৷ তাদের কাছ থেকে নিয়ে আমরা বাকিদের কাছে পৌঁছাব।

‘এমনও হয়েছে, অ্যাম্বুলেন্সে অক্সিজেন শেষ হয়ে গিয়েছে, আমরা সেখানেও আমাদের সেবা পৌঁছিয়ে দিয়েছি৷’

সেবার নামে জয় বাংলা কেন?

অক্সিজেন সেবার এই নাম রাখার কারণ জানতে চাইলে সাদ বলেন, “মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে ‘জয় বাংলা’ সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছে৷ ‘জয় বাংলা’ আমাদের শক্তি৷ ‘জয় বাংলা’ মানে মুক্তি। এই সংকট থেকে মুক্তির জন্য আমরা ‘জয় বাংলা’ নামটা ব্যবহার করেছি।”





প্রয়োজনে : ০১৭১১-১৩৪৩৫৫
Design By MrHostBD
বাংলা English
Copy link
Powered by Social Snap